TMC vs BJP: ফলাফলের পরই রাজনৈতিক হিংসায় উত্তপ্ত চোপড়া – chopra heated by political violence, allegations of looting of houses and shops of bjp workers against trinamool

Share Now





এই সময় ডিজিটাস ডেস্ক: রাজ্যে বিধানসভা ভোটের ফল ঘোষণা হতেই রাজনৈতিক হিংসায় উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে বাংলা (West Bengal Election 2021 Result)। রবিবার সন্ধ্যায় ভোটের ফল গণনা শেষ হতেই উত্তেজনা ছড়ায় উত্তর দিনাজপুরের চোপড়া বিধানসভা কেন্দ্রে। তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা BJP কর্মীদের বাড়িতে ঢুকে লুঠপাট চালায় এবং মারধর করে বলে অভিযোগ উঠেছে (TMC VS BJP)। রবিবার রাতভর চোপড়ার সোনাপুর, মাঝিয়ালি, দাসপাড়া, রামগঞ্জ, চোপড়া বাজার সহ বিভিন্ন জায়গায় মারপিট এবং লুঠপাট করার চিহ্ন সোমবার সকালেও দেখা যায়। গোটা ঘটনায় আতঙ্কিত চোপড়াবাসী।

জানা গিয়েছে, চোপড়া বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী হামিদুল রহমান জয়ী হয়েছেন। তাঁর জয় নিশ্চিত হতেই সোনাপুর, মাঝিয়ালী, দাসপাড়া, ঘিরনিগাঁও সহ চোপড়ার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে একের পর এক হিংসার অভিযোগ আসে। তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা BJPর পার্টি অফিস থেকে শুরু করে BJP কর্মীদের বাড়িতে চড়াও হয় বলে অভিযোগ। কোথাও BJP কর্মীদের মারধর করা হয়েছে তো কোথাও BJP কর্মীদের বাড়িতে লুঠপাট চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ। সদর চোপড়া বাজার এলাকায় BJPর পার্টি অফিস ভাঙা থেকে শুরু করে বিভিন্ন দোকানপাটেও উন্মত্ত তৃণমূল কর্মীরা রাতভর লুঠপাট চালায় বলে অভিযোগ। পুলিশের সামনে গোটা ঘটনা ঘটলেও পুলিশ নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।
শিবরাত্রির সলতে, সংযুক্ত মোর্চার বাতি জ্বালিয়ে রাখলেন ভাইজানের ভাই
এদিকে সকাল হতেই ক্ষতিগ্রস্ত দোকানের মালিকেরা দোকানের অবস্থা দেখে কার্যত মাথায় হাত দিয়ে বসে পড়েন। তাঁদের আক্ষেপ, ‘আমরা ব্যবসা করে খাই। কোনও রাজনৈতিক দল করি না। অথচ রবিবার সন্ধ্যায় ভোটে জয়ী হওয়ার পর তৃণমূল কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এলাকায় দোকানপাট, বাড়িঘর ভাঙচুর করে দেয়।’ কেবল BJP কর্মী নয়, তৃণমূল কর্মীদেরও দোকানে ভাঙচুর হয়েছে বলে অভিযোগ। ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে মীনা সাহা নামে স্থানীয় মহিলা তৃণমূল কর্মী বলেন, ‘আমরা তো তৃণমূল করি আমাদের দোকানও ভাঙচুর করে দিয়েছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। আমি বিধায়ক হামিদুল রহমানের কাছে জবাব চাইব কেন এই ধরনের ঘটনা ঘটাল।’ যদিও সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন চোপড়া ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি পৃথ্বীরঞ্জন ঘোষ। ভাঙচুর, লুঠপাটের খবর তাঁর কাছে আসেনি দাবি জানিয়ে তাঁর পাল্টা অভিযোগ, ‘ভোটের আগে BJPই তৃণমূল কর্মীদের মারধর করেছে। ভাঙচুর করেছিল তৃণমূলের অফিসও। আমরা শান্তি আর উন্নয়নের পক্ষে।’ তবে যদি কোনও বিক্ষিপ্ত কোনও ঘটনা ঘটে থাকে তা উচিত নয় বলে জানিয়েছেন তৃনমূল ব্লক সভাপতি পৃথ্বীরঞ্জন ঘোষ। এদিকে গোটা ঘটনায় চাপা উত্তেজনা দেখা দিয়েছে চোপড়া বিধানসভা কেন্দ্রে।
মোদী-দিদির যুদ্ধ শেষেও জেলায় জেলায় লড়াই জারি, মৃত্যুও
উল্লেখ্য, চোপড়ায় বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী হামিদুল রহমান। পরাজিত করেছেন BJP প্রার্থী শাহিন আখতারকে। ভোটের দিনই সন্ধ্যায় BJP-কর্মী সমর্থকদের উপর গুলি চালনার অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এরপর ভোট গণনার পরেও ফের অভিযোগের কাঠগড়ায় ঘাসফুল শিবির।

টাটকা ভিডিয়ো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন এই সময় ডিজিটালের YouTube পেজে। সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন।






Source link