Red Volunteer: আর্তের পাশে দিবারাত্র লাল স্বেচ্ছাসেবক সৌমিত্র ঘোষ – red volunteer soumitra ghosh is helping in covid19 pandemic

Share Now





এই সময়: এই করোনাকালে চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীদের অক্লান্ত পরিশ্রমকে কুর্নিশ না জানিয়ে উপায় নেই। তাঁদের পাশাপাশি নিজেদের উদ্যোগে বিভিন্ন এলাকায় ছুটে বেড়াচ্ছেন রেড ভলান্টিয়ার্সরা। রোগীকে হাসপাতালে পৌঁছোনো, অক্সিজেনের ব্যবস্থা কোনও কিছুতেই পিছিয়ে থাকছেন না তাঁরা। নিজেদের সাধ্যমতো আপ্রাণ লড়ছেন এই রেড ভলান্টিয়ার্সরা।

এই যেমন আড়িয়াদহের শশাঙ্ক ভাওসার। দু’দিন আগে জন্মদিন ছিল। কিন্তু জন্মদিন উপভোগের সময় নেই। তিনি তখন ছুটছেন রোগীর প্রাণ বাঁচাতে। না শশাঙ্ক চিকিৎসক বা স্বাস্থ্যকর্মী নন। নেহাতই বাম আন্দোলনের কর্মী। এসএফআইয়ের নেতা। এখন তিনি নিজের পরিচয় দেন রেড ভলান্টিয়ার্সের একজন স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে। সদ্য প্রকাশিত নির্বাচনী ফলাফলে শশাঙ্কের দল সিপিএম ধরাশায়ী রাজ্যের সব জায়গার মতো কামারহাটিতেও। সেখানকার সংযুক্ত মোর্চার পরাজিত প্রার্থী, যুবনেতা সায়নদীপ মিত্রের নেতৃত্বে এখন দম ফেলার সময় নেই শশাঙ্কদের মত রেড ভলান্টিয়ার্সদের। কখনও খবর আসছে কোথাও অক্সিজেন স্যাচুরেশন সাংঘাতিকভাবে নেমে ভীষণ সঙ্কটে কোনও রোগী। খবর পেয়েই অক্সিজেন সিলিন্ডার ঘাড়ে চাপিয়ে বাইক নিয়ে ছুটছেন শশাঙ্কের মতো মানস ধর, শুভম দত্তরা। বেলঘরিয়া দীপশিখা ক্লাবের কাছে এক রোগীকে বাঁচাতে এভাবে রাত ১২টাতেই ছুটলেন শশাঙ্করা। অক্সিজেন দিয়ে প্রোনিং করিয়ে নানাভাবে বাঁচানোর চেষ্টা করলেন রেড ভলান্টিয়ার্সের সদস্যরা। তখনই যোগাযোগ করে একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়েও যান রোগীকে। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। বাঁচানো যায়নি ওই রোগীকে। কিন্তু তা না হোক সঙ্কটকালে রেড ভলান্টিয়ার্সের এই মানবিক চেষ্টাটুকুকে দুহাত তুলে আশীর্বাদ করছেন এলাকার মানুষজন।

ঘরে বসে নেই হাওড়ার বালি-বেলুড়ের বাম কর্মীরাও। এখানেও রেড ভলান্টিয়ার্স, বালি বেলুড়ের স্বেচ্ছাসেবকরাও দিনরাত এক করে কোভিড আক্রান্তদের কাছে পৌঁছে যাচ্ছেন সাধ্যমতো সাহায্য নিয়ে। বালির সংযুক্ত মোর্চা প্রার্থী দীপ্সিতা ধর নিজে থাকছেন রেড ভলান্টিয়ার্সদের সঙ্গে। বেলুড়ের শিবচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় স্ট্রিটে কোভিডে আক্রান্ত অশীতিপর বৃদ্ধের আচমকা শ্বাসকষ্টের শুরু হলে খবর পান বামকর্মীরা। দ্রুত অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে দীপ্সিতার নেতৃত্বে রেড ভলান্টিয়ার্সরা পৌঁছে গেলেন ওই বৃদ্ধের বাড়ি। দ্রুত সাহায্যে তখনকার মতো সঙ্কটমুক্ত হন বৃদ্ধ। বেলুড়ের হরিচরণ ব্যানার্জি রোডের প্রদ্যুত ঘোষ এমনই এক স্বেচ্ছাসেবক, যিনি নিজে সদ্য কোভিড আক্রান্ত হয়েও সুস্থ হয়েছেন। এখনও শরীর যথেষ্ট দুর্বল। অথচ মাঝরাত্তিরে ডাক পড়লেও প্রদ্যুতের না নেই। স্থানীয় একটি বেসরকারি স্কুলের শিক্ষিকার কোভিড পজিটিভ রিপোর্ট এলে আচমকাই বেশি রাতে আতঙ্কের কারণে সাময়িক অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। তাঁর শ্বাসকষ্ট হচ্ছে বলে তাঁর সহকর্মীদের মারফত খবর পৌঁছয় প্রদ্যুতের কাছে। দ্রুত রেড ভলান্টিয়ার্স সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করে অক্সিজেন সিলিন্ডার সমেত বেলুড়ের গিরিশ ঘোষ রোডের রঙ্গোলি মলের কাছে শিক্ষিকার ফ্ল্যাটে পৌঁছোন প্রদ্যুৎ-সহ রেড ভলান্টিয়ার্সের অন্য সদস্যরা। পাশে এতজনকে পেয়ে ততক্ষণে কিছুটা মানসিক জোর ফিরে পেয়েছেন ওই মহিলা। রেড ভলান্টিয়ার্সদের আশ্বাসে তখনকার মত নিশ্চিন্ত হন শিক্ষিকা। ভোর রাতে ফের সমস্যা হলে স্বেচ্ছাসেবকরা ফের বাড়ি গিয়ে তাঁকে অক্সিজেন দেন। শুধু প্রদ্যুত একা নন তাঁর সঙ্গে রয়েছেন রাজর্ষি, কুমার, কৌশিক, অংশুমানের মতো আরও অন্তত ২০ জন স্বেচ্ছাসেবক। এই সেচ্ছাসেবকদের কাজের সুবিধার জন্যে বালির বামপ্রার্থী দীপ্সিতা ধর তাঁর নির্বাচনী তহবিলের বেঁচে যাওয়া অর্থ দিয়েছেন রেড ভলান্টিয়ার্সদের হাতে।

কলকাতার সব খবর জানতে ক্লিক করুন এখানে






Source link