Nusrat Jahan Trolled On Social Media – ফের সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলড হলেন Nusrat Jahan | Eisamay

Share Now





Nusrat Jahan-Nikhil Jain Controversy: প্রতিদিনই নতুন মোড় নিচ্ছে নুসরত জাহান-নিখিল জৈন বিতর্ক। গল্পে আসছে বিভিন্ন মোচড়। এই মুহূর্তে তাঁদের নিয়েই সরগরম নেট দুনিয়া। একদিকে অবৈধ স্বামীর সঙ্গে বাকযুদ্ধে মেতেছেন নায়িকা অন্যদিকে নিয়মিত সোশ্যাল মিডিয়ায় একের পর এক ছবি পোস্ট করে ব্যক্ত করছেন নিজের মতামত।

ইনস্টাগ্রামে তাঁর শেষ পোস্টে দেখা যাচ্ছে গাড়ির গায়ে ঠেস দিয়ে দিগন্তে সূর্যাস্ত দেখছেন নায়িকা। পোস্টে লিখেছেন, ‘মুখ বুজে যে সব সহ্য করেছে এমন নারী হিসেবে আমাকে কেউ মনে রাখবে না… তাতে আমার অবশ্য কোনও সমস্যা নেই।’

তাঁর এই পোস্টে একের পর এক নেটিজেন কটাক্ষে বিঁধেছেন নায়িকাকে। একজন লিখেছেন, ‘ভারত, বাংলা এবং সারা বিশ্বে বহু নারী রয়েছেন যাঁরা ভয়ডরহীন, আউটস্পোকেন এবং মানসিকভাবে দৃঢ়। তাঁরা ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন নিজেদের দক্ষতায়। তাঁদের বিষয়ে জানলে আমাদের গায়ে কাঁটা দেয়। তাঁদের জন্যে গর্ব অনুভব করি। কিন্তু বিশ্বাস করুন, আপনি তাঁদের মধ্যে পড়েন না। এই বিষয়ে আপনার মনে কোনও সন্দেহ না থাকাই ভালো।’

কেউ আবার লিখলেন, ‘তুমি কি জিনিস তা পার্কস্ট্রিট কান্ডের পরেই জেনে গিয়েছিলাম।’ আর এক নেটিজেন লেখেন, ‘সহবাস করার জন্যে টার্কিতে গিয়ে বিয়ে সেরেছিলেন নাকি! আপনাদের মতো মানুষের জন্যেই সমাজের এই অবস্থা। ছিঃ।’ কেউ বলেন, ‘আপনি নিজেও জানেন আপনি কতটা দোষী। তাই মুখ বন্ধ রাখছেন।’ অন্য এক নেটিজেন আবার তাঁর সন্তানের প্রসঙ্গ টেনে এনে প্রশ্ন করেন, ‘গর্ভস্থ সন্তানটি কার তা মনে আছে, নাকি সেটিও ভুলে গেছেন!’

আরও পড়ুন: যশের ছবিতে ভালোবাসার ছোঁয়া নুসরতের! সরগরম নেট দুনিয়া

এমনই একাধিক তির্যক মন্তব্যে ভাসছে তাঁর সোশ্যাল মিডিয়া। নায়িকা অবশ্য চুপই থাকছেন।

অন্যদিকে, নুসরতকে পালটা জবাব দিলেন এবার নিখিল জৈন (Nikhil Jain)। ‘বারবার বলা সত্ত্বেও নুসরত রেজিস্ট্রেশন এড়িয়ে গিয়েছিলেন। ২০২০ সালে একটি ছবির শুটিংয়ের পরই নুসরতের আচরণ বদলে যায়’, এমন দাবিই করলেন নিখিল।

নিখিল জৈন আরও বলেছেন, ‘২০১৯ সালে জুন মাসে নুসরতকে বিয়ে করতে তুরস্কে গিয়েছিলাম। পরে কলকাতায় আমাদের রিসেপশন হয়। বারবার বলা সত্ত্বেও বিয়ের রেজিস্ট্রশন এড়িয়ে যায় নুসরত। ২০২০ সালে একটি ছবির শুটিংয়ের পর থেকেই নুসরতের আচরণ বদল হতে থাকে। সে সময় নানা জায়গা থেকে নুসরত সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য আসতে শুরু করে। তখনই বুঝতে পারি প্রতারিত হয়েছি। ৫ নভেম্বর বাড়ি থেকে চলে যায়। সমস্ত জিনিসপত্র, কাগজপত্র নিয়ে চলে যায় ও’।






Source link