nachiketa chakraborty interview: ভোটভিক্ষা করছি না, মানুষকে সচেতন করছি – exclusive interview of nachiketa chakraborty

Share Now





হাইলাইটস

  • এই গানটায় যে কোনও অসৎ নেতার গা জ্বলা উচিত।
  • আর সহজ লাভের আশায় দূরের ক্ষতি দেখতে বা বুঝতে ভুলে যেও না।
  • কাল গ্যাস, পেট্রোল সব কিছুর দাম বাড়িয়ে হিসেব মিলিয়ে নেবে।

গানের শো আর প্রচার নিয়ে তাঁর ব্যস্ততা তুঙ্গে। সাক্ষাৎকার দিতে চান না। তা-ও কিছু কথা বললেন, অনুরোধ ফেলতে পারলেন না বলে। প্রশ্ন করেছেন ভাস্বতী ঘোষ

অন্য সময়:নচিকেতা চক্রবর্তী আবার তৃণমূলের প্রচারে। তা হলে কাটমানি নিয়ে গান গাইলেন কেন?
নচিকেতা: কাটমানি গানটা সারা দেশের ভণ্ড নেতাদের নিয়ে। দল নির্বিশেষে। অনেকে ওটাকে শুধু তৃণমূলের বিরুদ্ধে বলে ভাবেন। ভুল করেন। কারণ তাঁরা গানটা পুরোটা ভালো করে শোনেন না। এই গানটায় যে কোনও অসৎ নেতার গা জ্বলা উচিত। এ বার প্রচারের প্রসঙ্গে আসি। আমার কোনও দল নেই। তৃণমূলের বন্ধুদের তরফে প্রস্তাব পেয়ে প্রচারে গিয়েছি। নন্দীগ্রামে অবশ্য আমি নিজেই গিয়েছি। কারণ একটা জিনিস বুঝেছি, যাই হোক, বিজেপিকে আমি আনতে চাই না।

অন্য সময়: মমতা বন্দ্যাপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা হল?
নচিকেতা: না। উনি খুব ব্যস্ত। তার ওপর পায়ে চোট। আমি বিরক্ত করতে চাইনি ওঁকে। নিজের কাজ সেরে চলে এসেছি।

অন্য সময়: সংযুক্ত মোর্চা নয় বলছেন?
নচিকেতা: মুখে বলছে কমিউনিস্ট পার্টি। আর আব্বাস সিদ্দিকির দলে গিয়ে ঢুকছে? এটা হয় কী করে? কী জানি। সত্যিই এ নিয়ে কথা বলার মানে হয় না। এই জন্যই আমি কার হয়ে রাস্তায় নেমেছি, আমার কাছে পরিষ্কার।

অন্য সময়: ২০২১-এর এপ্রিলে বাংলা নিয়ে ভাবনাটা কী?
নচিকেতা: বিজেপি এলে বাংলার অবস্থা বিহারের মতো হবে। বিজেপি সব রাজ্যে এত প্রতিশ্রুতি দিয়ে, একটাও তো রাখেনি। তা হলে বাংলায় রাখবে, ভাবব কী করে?

ঐশ্বর্যের প্রেমে ঠিক কবে পড়েছিলেন? উত্তর দিলেন অভিষেক
অন্য সময়: প্রচারে আপনি হাতজোড় করছেন না। একদম নিজের মেজাজে বসে রয়েছেন দেখলাম। এটাই কি নচিকেতা?
নচিকেতা: (হেসে) এটাই আমি। ভোটভিক্ষা করতে যাচ্ছি না। মানুষকে সচেতন করতে যাচ্ছি। আবারও বলছি, আমার কোনও দল নেই। একজন শিল্পী হিসেবে মানুষকে সচেতন করতে চাইছি। কারণ আজকাল মনে হচ্ছে, বাংলার মানুষ কিছুই বোঝেন না! তাঁদের বোঝানো দরকার। তবে এটাও বলব, কাল হয়তো আমার মনে হতে পারে, আমি ভুল করেছি। কিন্তু এটা ঠিক, আমার কোনও ধান্দাবাজি নেই। আমার নেতা হওয়ার লোভ নেই। মাঝে-মাঝে প্রচারে যাচ্ছি, সৎ লক্ষ্য থেকে।

অন্য সময়: প্রচার কেন। নতুন গান কেন নয়?
নচিকেতা: সারাজীবনই আমাকে গানে এ সব কথা (সমাজের কথা) বলে যেতে হবে, বুঝে গিয়েছি। গান তৈরি আছে। ঠিক সময় আসবে। এখন আনলে তো সকলে বলবে, ভোটের প্রচার করছি। তবে সে গান আবার আটকে দেবে কি না গেরুয়া শিবির, তা দেখতে হবে!

অন্য সময়: একটি রাজনৈতিক দল নচিকেতার গানকে বাঙালির কাছে আটকে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে?
নচিকেতা: রাষ্ট্রতন্ত্রে সব হয় গো! কিশোর কুমারকে ব্যান করা হয়েছিল। কে নচিকেতা? চাপে পড়লে তখন ক্ষমা চেয়ে নেবে!

অন্য সময়: রাজনীতি মাঝে রেখে, টলিউডে গানের লড়াই হল। আপনার কেমন লাগল গানদু’টো?
নচিকেতা: একটাও শুনিনি। জানিনা।

অন্য সময়: টলিপাড়ার শিল্পীদের রাজনৈতিক দলে যোগ দেওয়ার হিড়িক দেখা গেল এ বার। আপনি কী বলবেন?
নচিকেতা: (জোরে নিঃশ্বাস ফেলে) কিছু বলার নেই।

অন্য সময়: ২ মে একটা রাজনৈতিক দলের জয় হবে। কিন্তু নিম্নবিত্ত মানুষদের কষ্ট কিছুতেই কমবে না। তাঁদের কেউ-কেউ আপনার অনুরাগী। এই অনুরাগীদের কী বলবেন?
নচিকেতা: আশা ছেড়ো না। আর সহজ লাভের আশায় দূরের ক্ষতি দেখতে বা বুঝতে ভুলে যেও না। ৫০০, ১০০০ টাকা দিচ্ছে আজ। কাল গ্যাস, পেট্রোল সব কিছুর দাম বাড়িয়ে হিসেব মিলিয়ে নেবে। তাই সাবধান! ধর্মের নাম করে রাজনৈতিক দলগুলো তোমাকে-আমাকে বোকা বানানোর চেষ্টা। আসলে পৃথিবীতে দু’টোই ধর্ম। গরিব আর বড়লোক।

অন্য সময়: নচিকেতা কি সত্যিই গরিব মানুষের কষ্ট অনুভব করেন? নাকি আর পাঁচজন তারকার মতো মুখস্থ করে এ সব লাইন বলে দেন?
নচিকেতা: আমাকে কি অক্ষয় কুমার ভাবেন? আমার বড় পরিবার। দিন আনি-দিন খাই অবস্থা। এ দেশে শুধুমাত্র আম্বানি-আদানি আর পলিটিশিয়ানদের কোনও চিন্তা নেই। বাকি সকলের চিন্তায় রাতে ঘুম আসে না। আমারও ঘুম আসে না। আপনি যে সাংবাদিক, আপনারও ঘুম আসে না!

টাটকা ভিডিয়ো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন এই সময় ডিজিটালের YouTube পেজে। সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন।






Source link