lockdown: দেশে ফের লকডাউন! কী ইঙ্গিত দিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী? – union finance minister nirmala sitharaman speaks about lockdown as the covid 19 cases are rising

Share Now





হাইলাইটস

  • দেশে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ
  • দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় ইতিমধ্যেই মহারাষ্ট্রে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে
  • এই প্রেক্ষিতে কি দেশে ফের লকডাউন জারি করা হবে?

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: দেশে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ (Covid 19)। দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় ইতিমধ্যেই মহারাষ্ট্রে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। সেই সঙ্গে ১৫ দিনের কার্ফু জারি করা হয়েছে। এদিকে, দেশের অন্য প্রান্তেও চোখ রাঙাচ্ছে করোনা (Coronavirus)। এই প্রেক্ষিতে কি দেশে ফের লকডাউন (Lockdown) জারি করা হবে? এ নিয়ে মুখ খুললেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন।

এই প্রসঙ্গে নির্মলা সীতারমন বলেছেন, ‘দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ চলছে। তা সত্ত্বেও বলছি, বড় করে আর লকডাউন জারি করা হবে না। আমরা অর্থনীতিকে স্তব্ধ করতে চাই না। যাঁরা আক্রান্ত হচ্ছেন, যাঁরা কোয়ারেন্টিনে আছেন, তাঁদের জন্য স্থানীয়ভাবে কনটেনমেন্ট জোনের মাধ্যমে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের মোকাবিলা করা হবে। দেশ আর বড়সড় লকডাউনের পথে হাঁটবে না।’

উল্লেখ্য, সম্প্রতি দেশের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, ‘আমাদের আর লকডাউনের প্রয়োজন নেই।’প্রধানমন্ত্রী সেদিন বলেন, ‘ফের কঠিন সময় আসছে। টিকা নেওয়ার পরও সতর্ক থাকতে হবে। উপসর্গহীন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। করোনা মোকাবিলায় সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে। করোনা পরীক্ষার সংখ্যা বাড়াতে হবে। মাইক্রো কনটেনমেন্ট জোনে নজর দিতে হবে। করোনা কার্ফু বজায় রাখা হোক। রাত ৯টা বা ১০টা থেকে ভোর ৫টা বা ৬টা পর্যন্ত করোনা কার্ফু করা হোক।’ উল্লেখ্য, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে নাইট কার্ফু চলছে। নাইট কার্ফুর বদলে করোনা কার্ফু শব্দ ব্যবহার করার কথা বলেন মোদী।

করোনা অতিমারী শেষ হতে কতদিন লাগবে? মুখ খুললেন WHO প্রধান

এদিকে, দেশজুড়ে আছড়ে পড়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ (Corona Update)। ভয়ংকর হারে বাড়ছে দৈনিক সংক্রমণ। ক্রমশই জটিল আকার নিচ্ছে করোনা চিত্র। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এক লাখ ৮৪ হাজার ৩৭২ জন। একদিনের কোভিডের বলি হয়েছে ১০২৭ জন। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের বুলেটিন জানান দিচ্ছে, এই মুহুর্তে দেশে চিকিৎসাধীন করোনা রোগীর সংখ্যা ১৩ লাখ ৬৫ হাজার ৭০৪। দেশে মোট মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৭২ হাজার ৮৫ জনের। ওয়ার্ল্ডোমিটারের হিসেব জানাচ্ছে, বিশ্বের মধ্যে আক্রান্তের নিরিখে আমেরিকার পরেই রয়েছে ভারত। মোট আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ৩৮ লাখ ৭৩ হাজার ৮২৫।

টাটকা ভিডিয়ো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন এই সময় ডিজিটালের YouTube পেজে। সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন।






Source link