Kolkata rain: শহরে চেনা জলছবি, রাজভবনের সামনে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত ১ – kolkata flooded after heavy spell of rain with thunderstorm

Share Now





হাইলাইটস

  • প্রবল বর্ষের সাক্ষী রইল শহর কলকাতা
  • আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, ঠনঠনিয়া কালীবাড়ি এলাকায় ৮৭.৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে।
  • দুশ্চিন্তা বাড়িয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: দুপুরেই ঘনিয়ে এল আঁধার। দিনভর আকাশ কালো। প্রবল বর্ষের সাক্ষী রইল শহর কলকাতা (Kolkata Rain)। একনাগাড়ে বৃষ্টির জেরে কলকাতায় ফিরল চেনা জলছবি। কয়েকঘণ্টার বৃষ্টিতে জলমগ্ন একাধিক এলাকা। বিপর্যস্ত অবস্থা হয়েছে তিলোত্তমার। রাজভবনের সামনে জলের মধ্যে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয়েছে এক ব্যক্তির। পাশাপাশি উল্টোডাঙা ব্রিজের তলায় জল জমে বাস ডুবে যায়। পার্ক স্ট্রিট, আমহার্স্ট্র স্ট্রিট এলাকায় জল থইথই। ফলে দুর্ভোগের শিকার হয়েছেন সাধারণ মানুষ। অফিস ফেরত যাত্রীদের চরম সমস্যায় পড়তে হয়।
নির্ধারিত সূচিতে হচ্ছে না মাধ্যমিক, ঘোষণা পর্ষদ সভাপতির
আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, ঠনঠনিয়া কালীবাড়ি এলাকায় ১৫৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। ধাপায় হয়েছে ১২৮ মিলিমিটার। চিংড়িঘাটায় ১৩০ মিলিমিটার, উল্টোডাঙায় ১১৫ মিলিমিটার, তোপসিয়ায় ৫৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। বালিগঞ্জে হয়েছে ৮৯ মিলিমিটার, বীরপাড়ায় ৯৪ মিলিমিটার, মোমিনপুরে ৭৮ মিলিমিটার, বেহালায় ৭০.৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। প্রবল বৃষ্টির জেরে দৃশ্যমানতা কম থাকায় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে রাজ্যে প্রাণ হারিয়েছেন ৫ জন। মুর্শিদাবাদের সামসেরগঞ্জে এবং বর্ধমানের খণ্ডঘোষে বাজ পড়ে একজন করে মারা গিয়েছেন। অন্যদিকে, নানুরে গাড়ি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন আরও দু’জন। ঘন কালো মেঘ এবং লাগাতার বজ্রপাতের জেরে শহরের পরিস্থিতিও বেগতিক হয়ে পড়ে। একটানা বৃষ্টির জেরে রাজভবনের সামনে জমে থাকা জলের মধ্যে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে লুটিয়ে পড়লেন এক ব্যক্তি। কলকাতা পুলিশের অ্যাম্বুলেন্স ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছলেও উদ্ধারকার্য শুরু করতে দেরী হয়। এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন না করা পর্যন্ত ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করা যায়নি। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তি অফিস থেকে ফিরছিলেন। সেই সময় বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে আচমকাই রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন তিনি।

দুপুরেই নামল সন্ধ্যা, শহরজুড়ে ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি
দুশ্চিন্তা বাড়িয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। আগামী ৪৮ ঘণ্টা ধরে এইরকম আবহাওয়া চলবে বলে জানা গিয়েছে। দক্ষিণবঙ্গের উপর তৈরি হয়েছে একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা। পশ্চিম রাজস্থান থেকে অসম পর্যন্ত, উত্তর প্রদেশ, বিহার এবং হিমালয় সংলগ্ন পশ্চিমবঙ্গের উপর দিয়ে পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে গেছে এই রেখা। এর ফলে বঙ্গোপসাগর থেকে প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্প ঢুকছে রাজ্যে। যার জেরে দক্ষিণবঙ্গের উপকূলের জেলা ও পশ্চিমবঙ্গের বাংলাদেশ লাগোয়া জেলাগুলিতে ঝড়-বৃষ্টি চলবে। হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, ১৩মে থেকে বৃষ্টির পরিমাণ কমবে। ১৪ মে থেকে আকাশ পরিষ্কার হবে।

কলকাতার আরও খবরের জন্য ক্লিক করুন প্রতি মুহূর্তে খবরের আপডেটের জন্য চোখ রাখুন এই সময় ডিজিটালে।






Source link