Kareena Kapoor Priyanka Chopra: ‘আঙুর ফল টক’, করিনা-প্রিয়াঙ্কার ক্যাট ফাইট! – priyanka chopra said sour grapes after kareena kapoor khan claimed she did not need national award

Share Now





হাইলাইটস

  • বলিপাড়ায় কান পাতলেই শোনা যায় এই দুই নায়িকার ইঁদুর দৌড়ের কথা
  • এই নায়িকা প্রায় এক সময়েই বলিউড শাসন করেছেন
  • প্রিয়াঙ্কা বলেছিলেন, ‘মনে হয়, যখন তুমি কোনও কিছু না পাও, তখন আঙুর ফল টক লাগে। বুঝতে পারছেন, কী বলছি।’

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: বি-টাউনে তাঁরা দু’জনই সুপারস্টার। এ বলে আমায় দ্যাখ, তো ও বলে আমায়! দুই নায়িকা প্রায় এক সময়েই বলিউড শাসন করেছেন। একে অপরকে টেক্কাও দিয়েছেন তাঁরা। দুই নায়িকার মধ্যে এক নায়িকার হাতে এল জাতীয় পুরস্কার। এই নিয়ে অপরজন অকপট বলে দিলেন, তাঁর জাতীয় পুরস্কারের দরকার নেই। যা শুনে জাতীয় পুরস্কার জয়ী নায়িকা বলে ফেললেন, ‘আঙুর ফল টক’। করিনা কাপুর খান ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার কথাই হচ্ছে।

বলিপাড়ায় কান পাতলেই শোনা যায় এই দুই নায়িকার ইঁদুর দৌড়ের কথা। যদিও ২০১৯ সালে ‘কফি উইথ করণ’ শোয়ে দুই নায়িকার খুনসুটি নজর কেড়েছিল। অথচ ২০১২ সালে ওই শোয়ের এক এপিসোডে সঞ্চালক তথা প্রযোজক করণ জোহর করিনাকে জিজ্ঞাসা করেন জাতীয় পুরস্কার নিয়ে। উল্লেখ্য, ২০১০ সালে ‘ফ্যাশন’ সিনেমার জন্য জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন প্রিয়াঙ্কা। করিনার ঝুলিতে এখনও আসেনি এই পুরস্কার। এই প্রেক্ষিতে সইফ ঘরণী বলেছিলেন, ‘জাতীয় পুরস্কার আমার চাই না…সত্যিই আমার এ ধরনের কিছুর দরকার নেই। আমি চাই, দর্শক শুধু ছবি দেখুক…।’

করিনার এই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে সংবাদমাধ্যমে প্রিয়াঙ্কা বলেছিলেন, ‘মনে হয়, যখন তুমি কোনও কিছু না পাও, তখন আঙুর ফল টক লাগে। বুঝতে পারছেন, কী বলছি।’

শরীরের সাইজটাই কি সব? প্রশ্ন ছুড়লেন সায়ন্তনী

২০১৯ সালে ‘কফি উইথ করণ’ শোয়ে অবশ্য করিনা ও প্রিয়াঙ্কাকে বেশ খোশমেজাজেই দেখা গিয়েছিল। শোয়ের শুরু থেকে শেষ, দুই নায়িকাকে খুনসুটি করতেও দেখা যায়। দুই নায়িকার প্রাক্তন প্রেমিক শাহিদ কাপুরকে নিয়েও তাঁরা কথা বলেন। অন্যদিকে, নিকের সঙ্গে বিয়ের পর প্রথম এই শোয়ে এসেছিলেন প্রিয়াঙ্কা। শোয়ে প্রিয়াঙ্কার বিয়ের গল্পও শুনতে চান করিনা। এমনকি, নিক ব্রাদার্সদের যে করিনা পছন্দ করেন, সেকথাও অকপটে বলেন করিনা।

টাটকা ভিডিয়ো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন এই সময় ডিজিটালের YouTube পেজে। সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন।






Source link