Covid Vaccine: শিশুরা কবে পাবে টিকা? জানালেন AIIMS-এর ডিরেক্টর – vaccine for children may be available by september says aiims dr. randeep guleria

Share Now





হাইলাইটস

  • ১৮ ঊর্ধ্বদের জন্য বাজারে টিকা এলেও এখনও পর্যন্ত শিশুদের জন্য কোনও টিকা বাজারে আসেনি।
  • এবার এই নিয়ে বড় ঘোষণা করলেন দিল্লির AIIMS ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া।
  • তিনি জানিয়েছেন, সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যেই শিশুদের জন্য টিকা বাজারে আসতে পারে।

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: করোনার দ্বিতীয় ঢেউ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়নি পুরোপুরি। এরই মধ্যে দরজায় কড়া নাড়ছে করোনার তৃতীয় ঢেউ। এই পরিস্থিতিতে থেকে রেহাই পেতে টিকাকরণেই ভরসা রাখছেন বিশেষজ্ঞরা। ১৮ ঊর্ধ্বদের জন্য বাজারে টিকা এলেও এখনও পর্যন্ত শিশুদের জন্য কোনও টিকা বাজারে আসেনি। এবার এই নিয়ে বড় ঘোষণা করলেন দিল্লির AIIMS ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া। তিনি জানিয়েছেন, সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যেই শিশুদের জন্য টিকা বাজারে আসতে পারে।

কেন্দ্রীয় সরকারের টাস্ক ফোর্সের সদস্য এই চিকিৎসক জানিয়েছেন, শিশুদের জন্য কোভ্যাক্সিন কতটা গ্রহণযোগ্য সেই সম্পর্কে ট্রায়াল চলছে। টিকাটিক দ্বিতীয় এবং তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল সেপ্টেম্বর মাসের সম্পূর্ণ হতে পারে। সেক্ষেত্রে ট্রায়ালের ফলাফলের উপর ভিত্তি করে সেপ্টেম্বর মাসেই শিশুদের জন্য কোভ্যাক্সিন ব্যবহারে দেওয়া হতে পারে অনুমতি। ইতিমধ্যেই এই ট্রায়ালের জন্য ২ থেকে ১৭ বছর বয়সী স্বেচ্ছাসেবকদের নির্বাচন শুরু করেছে দিল্লি AIIMS। ১২ মে DCGI ভারত বায়োটেককে অনুর্ধ্ব ১৮-দের উপর কোভ্যাক্সিনের ট্রায়াল চালানোর অনুমতি দিয়েছিল।

কবে আছড়ে পড়বে করোনার তৃতীয় ঢেউ? জানিয়ে দিলেন AIIMS ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া
প্রসঙ্গত, কোনওমতে দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে দেশ। এরমধ্যেই চোখ রাঙাচ্ছে করোনার তৃতীয় ঢেউ (Third Wave)। ঠিক কবে নাগাদ আছড়ে পড়তে পারে থার্ড ওয়েভ। কতটাই বা অনিবার্য। এই সমস্ত প্রশ্নের ধোঁয়াশা কাটান AIIMS-এর ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া। কী জানাচ্ছেন তিনি? কতটা ভয়াবহ হতে পারে এই পর্বের করোনা সংক্রমণ?

কোভ্যাক্সিন নেবেন? কতটা কার্যকর এই টিকা, জেনে নিন
AIIMS-এর ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া (Randeep Guleria) বলেন, ‘আগামী ছয় থেকে আট সপ্তাহের মধ্যেই ভারতে করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে। কোভিড সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউয়ের আঘাত অনিবার্য। এই পরিস্থিতিতে বিশাল জনসংখ্যার এই দেশে টিকাকরণ কর্মসূচি সম্পন্ন করাই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।’ একইসঙ্গে টিকা নিয়েও ধোঁয়াশা কাটালেন তিনি। তাঁর কথায়, ‘কোভিশিল্ডের প্রথম এবং দ্বিতীয় ডোজের টিকার মধ্যে সময়ের ব্যবধান বৃদ্ধির কোনও খারাপ প্রভাব ফেলবে না।’






Source link