COVID 19 India: তথ্যে কারচুপি? করোনায় মৃত্যু বাড়ল ৭২% – covid 19 india death count jumped all of a sudden

Share Now





হাইলাইটস

  • কোভিডে মৃতের প্রকৃত সংখ্যা প্রকাশ করছে না ভারত, নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ ঘরে-বাইরে বিভিন্ন সময়ে উঠেছে
  • প্রত্যাশিত ভাবেই সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছে মোদী সরকার
  • কিন্তু বিজেপির জোটসঙ্গী শাসিত বিহারে যে ভাবে রাতারাতি করোনায় মৃতের সংখ্যা এক ধাক্কায় ৭২ শতাংশ বেড়ে গেল, তা যে কেন্দ্রীয় সরকারকেও প্রশ্নের মুখে ফেলবে, সে ব্যাপারে সন্দেহের অবকাশ কম

পাটনা: কোভিডে মৃতের প্রকৃত সংখ্যা প্রকাশ করছে না ভারত, নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ ঘরে-বাইরে বিভিন্ন সময়ে উঠেছে। প্রত্যাশিত ভাবেই সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছে মোদী সরকার। কিন্তু বিজেপির জোটসঙ্গী শাসিত বিহারে যে ভাবে রাতারাতি করোনায় মৃতের সংখ্যা এক ধাক্কায় ৭২ শতাংশ বেড়ে গেল, তা যে কেন্দ্রীয় সরকারকেও প্রশ্নের মুখে ফেলবে, সে ব্যাপারে সন্দেহের অবকাশ কম।

মঙ্গলবার পর্যন্ত বিহারে করোনায় মৃতের সংখ্যা ছিল ৫,৪৫৮। বুধবার সন্ধ্যায় বিহারের স্বাস্থ্য দপ্তরের প্রকাশিত বুলেটিন বলছে, করোনায় মৃতের সংখ্যা নাকি ৯,৪২৯! অর্থাৎ, একদিনে কেবল বিহারে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৩,৯৫১ জনের! আর তার জেরে দেশের দৈনিক করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা পৌঁছে গেল ৬,১৪৮-এ, যা এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ দৈনিক মৃত্যু!

দেশের সংক্রমণের গ্রাফ কিন্তু নিম্নমুখীই। একদিনে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৯৪,০৫২ আর বিহারের সংখ্যাটা বাদ দিলে একদিনে দেশে মৃত্যু ২,১৯৭- যা করোনার নিম্নমুখী গতিরই প্রমাণ। তা হলে আচমকা বিহারে কী এমন ঘটল?

এখানেই উঠে আসছে রাজনৈতিক দোষারোপের পালা এবং স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠছে বিহারের গঙ্গায় দেহ ভেসে আসার ঘটনা নিয়ে। তবে কি বিহারের ‘হিসেব বহির্ভূত’ করোনা রোগীদের দেহ ছুড়ে ফেলা হয়েছিল নদীতে? প্রশাসনের তরফে জবাব না মিললেও রাজনৈতিক তরজা শুরু হয়ে গিয়েছে।

বিহারে বিরোধীদের দীর্ঘদিনের অভিযোগ, নিজেদের কোভিড নিয়ন্ত্রণের ব্যর্থতা লুকোতে করোনায় মৃতের প্রকৃত সংখ্যা চেপে যাচ্ছে নীতীশ কুমারের সরকার। গত মাসে বক্সারের কাছে নদীতে মৃতদেহ ভাসার ছবি বিরোধীদের অভিযোগকে আরও পোক্ত করে। মৃত্যুর সঠিক সংখ্যা প্রকাশের দাবি নিয়ে পাটনা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন বিরোধীরা। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে এপ্রিল-মে মাসে বিহারে কতজন করোনায় মারা গিয়েছেন, তার অডিট করার নির্দেশ দেয় পাটনা হাইকোর্ট। আর তাতেই ধরা পড়ে সংখ্যার গরমিল!

তিন সপ্তাহের অডিট রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, ২০২০-এর মার্চ থেকে ২০২১-এর মার্চ পর্যন্ত বিহারে করোনায় মৃতের সংখ্যা ১,৬০০, আর ২০২১-এর এপ্রিল থেকে ৭ জুনের মধ্যে মৃতের সংখ্যাটা ৭,৭৭৫, অর্থাৎ প্রায় ছ’গুণ! বিহারের স্বাস্থ্য দপ্তরের দাবি, সব জেলার কোভিডের তথ্য যাচাই করে মৃতের এই নতুন সংখ্যা প্রকাশ্যে এসেছে। ৩৮টি জেলায় কোথায় কত মৃত্যু, সেই পরিসংখ্যান স্বাস্থ্য দপ্তর প্রকাশ করলেও কোন সময়ের মধ্যে এই ঘটনা ঘটেছে, তা স্পষ্ট করেনি।

১৮ বছরের বেশি বয়সী সকলকে এবার করোনা ভ্যাকসিন

কিন্তু এখন মৃতের যে সংখ্যা সামনে এল, তা আগে পাওয়া গেল না কেন? তা হলে কি ইচ্ছে করেই সরকারি তথ্যে মৃতের সংখ্যা কমিয়ে দেখানো হচ্ছিল?

বিহারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী মঙ্গল পাণ্ডের দাবি, ‘গ্রাম ও জেলাস্তর থেকে কোভিডের তথ্য পেতে দেরি হয়। আমরা মিডিয়া-সহ নানা সূত্র মারফত খবর পাচ্ছিলাম, করোনায় মৃতের সংখ্যা নাকি আদতে আরও বেশি। তাই আমরা গ্রাম ও জেলাস্তরের আধিকারিকদের আসল পরিসংখ্যান খুঁজে বের করার নির্দেশ দিই। সেটা প্রকাশ্যে আসতেই জনসাধারণের সামনে প্রকাশ করা হয়েছে, এখানে লুকোছাপার কোনও ব্যাপার নেই।’

কিন্তু লুকোছাপা যদি না থাকবে, তা হলে পাটনার তথ্যে এত গরমিল কেন?

স্বাস্থ্য দপ্তরের তথ্য বলছে, রাজধানী পাটনায় মৃতের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি, ২,৩০৩। কিন্তু পাটনায় তিনটি সরকারি শ্মশানের রেকর্ড বলছে, সেখানে শেষকৃত্য হয়েছে ৩,২৪৩ জন কোভিড আক্রান্তের, যা সরকারি পরিসংখ্যানের থেকে অনেকটাই বেশি! বিহারের স্বাস্থ্য দপ্তরের মুখ্যসচিব প্রত্যয় অমৃতের অবশ্য দাবি, অন্য জেলার কেউ পাটনায় এসে মারা গেলে তাঁর শেষকৃত্য পাটনায় হয় কিন্তু মৃত হিসেবে নাম নথিভুক্ত হয় তাঁর নিজের জেলায়, সেই কারণেই পরিসংখ্যানে এই ফারাক!

কিন্তু বিরোধীরা এই যুক্তি মানতে নারাজ, বিরোধী নেতা তেজস্বী যাদবের দাবি, আসলে মৃতের সংখ্যাটা ২০ গুণ বেশি! আরজেডির রাজ্যসভার সাংসদ মনোজ ঝা-র দাবি, ‘নীতীশ-বিজেপি সরকার নিজেদের ভাবমূর্তি বাঁচাতে এবং বিহারের ভেঙে পড়া স্বাস্থ্য পরিকাঠামো চাপা দিতে পরিসংখ্যান লুকোচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ, দয়া করে মৃতদেহ নিয়ে রাজনীতি বন্ধ করুন।’

Covid 19 কবে কমবে দেশে? জানিয়ে দিলেন বিজ্ঞানীরা

কটাক্ষের তির ধেয়ে এসেছে অন্য রাজ্য থেকেও। বিহারে গ্রামের পাশে নদীতে বেশ কিছু মৃতদেহ ভাসতে দেখা গিয়েছিল, যা করোনা রোগীর বলে দাবি গ্রামবাসীদের। বিহার প্রশাসন অভিযোগ তুলেছিল, উত্তরপ্রদেশ থেকেই করোনা রোগীদের দেহ এ ভাবে ভাসিয়ে দেওয়া হচ্ছে, যা বিহারের নদী-ঘাটে এসে ঠেকছে। উত্তরপ্রদেশ অবশ্য এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিহারের এই তথ্য প্রকাশ্যে আসার পর কটাক্ষ ধেয়ে আসে মুম্বইয়ের মেয়র কিশোরী পেডনেকরের তরফ থেকে। মহারাষ্ট্রের অ-বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে কোভিডে মৃতের সংখ্যা লুকোনোর অভিযোগ তুলেছিল বিজেপি। মুম্বইয়ের মেয়রের দাবি, ‘আমাদের দেহ ভাসিয়ে দেওয়ার মতো নদী নেই, ফলে মৃতের সংখ্যায় কারচুপিরও সুযোগ নেই!’






Source link