coronavirus: পাঁচ অনুর্ধ্বদের জন্য বাধ্যতামূলক নয় মাস্ক, জারি নয়া গাইডলাইন – directorate general of health services says in its recommendations that wearing masks to prevent coronavirus is not recommended for children below five years of age

Share Now





হাইলাইটস

  • করোনাভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পেতে অন্যতম হাতিয়ার মাস্ক।
  • কিন্তু পাঁচ বছর পর্যন্ত বয়সীদের মাস্কের প্রয়োজন হবে না, এমনটাই জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অধীনস্ত ডিরেক্টর জেনারেল অফ হেলথ সার্ভিস।
  • DGHS-এর তরফে জানানো হয়েছে, ৬ থেকে ১১ বছর বয়সীরা মাস্ক পরতে পারেন।

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: করোনাভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পেতে অন্যতম হাতিয়ার মাস্ক। কিন্তু পাঁচ বছর পর্যন্ত বয়সীদের মাস্কের প্রয়োজন হবে না, এমনটাই জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অধীনস্ত ডিরেক্টর জেনারেল অফ হেলথ সার্ভিস(DGHS) ।

DGHS-এর তরফে জানানো হয়েছে, ৬ থেকে ১১ বছর বয়সীরা মাস্ক পরতে পারেন। কিন্তু সেক্ষেত্রে বাবা মা এবং চিকিৎসকদের পরামর্শ নিতে হবে। সম্প্রতি শিশুদের করোনা থেকে কীভাবে সুরক্ষিত রাখা সম্ভব, সেই সম্পর্কিত একগুচ্ছ সুপারিশ করেছে DGHS। এই রিপোর্টে শিশুদের করোনা থেকে সুরক্ষিত রাখার জন্য একগুচ্ছ গাইডলাইন জারি করা হয়েছে। এই গাইডলাইনে শিশুদের করোনা চিকিৎসায় রেমডিসিভিরের ব্যবহারের কথা উল্লেখ করা হয়নি। এই গাইডলাইনে আরও বলা হয়েঠে, অল্প এবং মাঝারি উপসর্গ বিশিষ্ট ১৮ অনুর্ধ্ব রোগীদের ক্ষেত্রে স্টেরয়েড ব্যবহার করা ক্ষতিকারক।

এই গাইডলাইনে বলা হয়েছে, ‘সঠিক সময়ে সঠিক মাত্রায় স্টেরয়েড দেওয়া উচিত। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া স্টেরয়েড নেওয়া উচিত নয়। ‘ এই গাইডলাইনে আরও বলা হয়েছে, করোনার মৃদু উপসর্গ বিশিষ্ট রোগীদের ক্ষেত্রে ৪ থেকে ৬ ঘণ্টা অন্তর প্যারাসিটামল ’10-15mg/kg/dose’ দেওয়া যেতে পারে।
গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যুর সংখ্যায় রেকর্ড
প্রসঙ্গত, এক লাখের নীচে দেশের দৈনিক করোনা সংক্রমণ। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৯৪ হাজার ৫২ জন, কোভিডমুক্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫১ হাজার ৩৬৭ জন।

ডাবল মিউট্যান্ট স্ট্রেনই নয়া আতঙ্ক, মানলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী
এদিকে সংক্রমণ কমলেও দিন প্রতিদিন বেড়েই চলেছে কোভিড মৃত্যু। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা প্রাণ কেড়েছে ৬ হাজার ১৪৮ জনের, যা রেকর্ড। এর আগে কোভিডে একদিনে এত মৃত্যু দেখেনি দেশ। আর এই মৃত্যুর হারবৃদ্ধি চিন্তার ভাঁজ ফেলছে বিশেষজ্ঞদের কপালে।অভিজ্ঞমহলের একাংশের কথায়, করোনাভাইরাসের ডেলটা প্রজাতি অনেক বেশি সংক্রামক। আর এই নতুন প্রজাতিই প্রাণ কাড়ছে বহু মানুষের, মনে করছেন গবেষকরা।প্রসঙ্গত, বিহার কোভিড মৃত্যুর পর্যালোচনা করছে। গত ২৪ ঘণ্টায় শুধু বিহারেই কোভিডে মৃত্যু দেখানো হয়েছে ৩ হাজার ৯৭১ জনের।






Source link