Arvind Kejriwal: পিৎজা ‘হোম ডেলিভারি ‘ হলে রেশনে আপত্তি কেন – delhi cm arvind kejriwal question on central government ration project

Share Now





হাইলাইটস

  • পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্পের ধাঁচেই চলতি করোনা পরিস্থিতিতে দিল্লির প্রায় ৭২ লক্ষ উপভোক্তার ঘরে-ঘরে চাল ও আটা পৌঁছে দেওয়ার প্রকল্প নিয়েছিল আম আদমি পার্টির সরকার।
  • সোমবার থেকে তা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও কেন্দ্র কার্যত আচমকাই তা বন্ধ রাখতে বলেছে।
  • বাড়ির চৌকাঠ পর্যন্ত যদি পিৎজা-বার্গার পৌঁছে যায়, তা হলে রেশনে আপত্তি কোথায়

নয়াদিল্লি: বাড়ির চৌকাঠ পর্যন্ত যদি পিৎজা-বার্গার পৌঁছে যায়, তা হলে রেশনে আপত্তি কোথায়- রবিবার এই প্রশ্ন তুলেই কেন্দ্রকে বিঁধলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্পের ধাঁচেই চলতি করোনা পরিস্থিতিতে দিল্লির প্রায় ৭২ লক্ষ উপভোক্তার ঘরে-ঘরে চাল ও আটা পৌঁছে দেওয়ার প্রকল্প নিয়েছিল আম আদমি পার্টির সরকার। সোমবার থেকে তা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও কেন্দ্র কার্যত আচমকাই তা বন্ধ রাখতে বলেছে।

সেই প্রেক্ষিতেই এদিন সাংবাদিক বৈঠকে কেজরিওয়াল বলেন, ‘আমি হাতজোড় করে কেন্দ্রের কাছে অনুরোধ করছি, দয়া করে অন্তত গরিবদের কথা ভেবে এই প্রকল্প বন্ধ করবেন না। অনুমতি দিয়ে বাধিত করুন। এর মধ্যে অন্তত আর রাজনীতি আনবেন না।’ রেশন-মাফিয়াদের পিঠ বাঁচাতেই কেন্দ্রের এই পদক্ষেপ বলেও মন্তব্য করেন কেজরি। তাঁর কথায়, ‘বোঝাই যাচ্ছে, দরিদ্রদের কথা ভেবেও বিরোধীদের কোনও প্রকল্পই গ্রাহ্য করবে না কেন্দ্র। পিৎজা, বার্গার, ফোন, জামাকাপড় তো এই অতিমারী আবহেও দিব্যি হোম ডেলিভারি হচ্ছে। তা হলে রেশনে আপত্তি কীসের? জানি না, কেন্দ্রে কেন এই প্রকল্প কোনও কারণ ছাড়াই হঠাৎ বন্ধ করে দিল।’

‘জল্পনা’ বনাম বাস্তব বোঝাতে মরিয়া কেন্দ্র
দিল্লির লেফটেন্যান্ট জেনারেল অনিল বৈজলের অবশ্য দাবি, দিল্লির ঘরে-ঘরে রেশন প্রকল্প বাতিল করা হয়নি। প্রকল্পটি পুনর্বিবেচনার জন্য শুধু স্থগিত রাখা হয়েছে মাত্র।

কিন্তু তা-ই বা হবে কেন? তা-ও কি না প্রকল্প শুরুর দু’দিন আগে! কেন্দ্রের কাছে কি তা হলে আগাম অনুমতি নেয়নি আপ সরকার? সাংবাদিকদের এই প্রশ্নের উত্তরে কেজরি বলেন, ‘যদি আইনের কথা বলেন, তা হলে বলব এই ধরনের প্রকল্প চালুর ক্ষেত্রের কেন্দ্রের অনুমতি নিতে বাধ্য নয় দিল্লি সরকার। তবু সৌজন্যের খাতিরে আমরা দফায় দফায় অন্তত ৫ বার অনুমতি নিয়ে রেখেছিলাম। তবু কার্যক্ষেত্রে নির্ধারিত দিনে শুরুই করা গেল না প্রকল্পটি।’

চাপের মুখে ভাষা-ফতোয়া তুলে নিল দিল্লির হাসপাতাল
দিল্লির লেফটেন্যান্ট জেনারেল জানিয়েছেন, প্রকল্পটি পুনর্বিবেচনা না-করে বাস্তবায়িত করা যাবে না। কয়েক দিন আগেই কেজরিওয়াল জানিয়েছিলেন, গরিব পরিবারের ৭০ লক্ষেরও বেশি মানুষকে ৫ কেজি করে রেশন দেবে দিল্লির সরকার। কেন্দ্রীয় সরকারের প্রকল্প থেকে মিলবে আরও ৫ কেজি করে। অর্থাৎ রেশনের দোকানে লাইন না-দিয়ে বাড়িতে বসেই ১০ কেজি করে রেশন পাবেন দিল্লির উপভোক্তারা। এই বিতরণ পদ্ধতি পরিবর্তন বা পুনর্বিবেচনার কথা বলছে কেন্দ্র। তাদের যুক্তি, এই প্রকল্প কার্যকর হলে রেশন গ্রাহকদের কেন্দ্র-নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে কিনতে হতে পারে সামগ্রী। কোন অঙ্কে তাদের এই আশঙ্কা, তা অবশ্য স্পষ্ট করেনি নরেন্দ্র মোদীর সরকার।






Source link