জুলাই পর্যন্ত টিকা-ঘাটতি আশঙ্কার পর এবার ড্যামেজ কন্ট্রোলে সেরাম কর্তা! – covid19 vaccine sii chief issues clarification says advanced companies countries struggling for vaccines too

Share Now





এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণের সুনামি দেশ জুড়ে। তার মাঝেই বিপদ বাড়িয়েছে ভ্যাকসিনের আকাল। পয়লা মে থেকে তৃতীয় পর্যায় অর্থাৎ ১৮ ঊর্ধ্বদের টিকাকরণের কাজ শুরু হয়েছে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে বহু জায়গাতেই সমস্যা বাড়িয়েছে ভ্যাকসিনের অপ্রতুল যোগান।

এই প্রেক্ষিতে সেরাম ইনস্টিটিউটের (Serum Institute of India) তরফে CEO আদর পুনেওয়ালা (Adar Poonawala) জানিয়েছেন, ভ্যাকসিনের আকাল এখনই মেটা সম্ভবপর নয়। চাহিদামাফিক পর্যাপ্ত ভ্যাকসিনের জোগান স্বাভাবিক হতে হতে জুলাই মাস পর্যন্ত সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন সেরাম কর্তা। টিকার আকালে মহারাষ্ট্র ও দিল্লি প্রশাসনের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে এখনই ১৮ ঊর্ধ্বদের টিকা দেওয়া সম্ভব নয়।

ফিনান্সিয়াল টাইমসের এক রিপোর্ট অনুযায়ী, জুলাই মাসে কোভিশিল্ড উৎপাদন বাড়াতে চলেছে সেরাম। এখন মাসে ৬-৭ কোটি কোভিশিল্ডের ডোজ তৈরি করা হয়। জুলাইয়ে প্রোডাকশন ক্ষমতা বাড়লে মাসে ১০ কোটি কোভিশিল্ড তৈরি করতে পারবে সেরাম। টিকার আকাল প্রসঙ্গে সেরাম কর্তা বলেন, ‘সরকারও ভাবতে পারেনি এভাবে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ চলে আসবে। জানুয়ারিতে দেশে সংক্রমণ অনেক কমে গিয়েছিল। সবাই ভেবেছিল মহামারি এবার শেষ হল বলে। আচমকা সংক্রমণ সামাল দিতে টিকার চাহিদা বাড়াতেই বিপত্তি।’ ভ্যাকসিনের আকালের জন্য সরাসরি কেন্দ্রকেই দায়ী করেছেন আদর পুনেওয়ালা। তিনি বলেন, ‘আমরা যেমন অর্ডার পেয়েছি সেই অনুযায়ী প্রোডাকশন করছিলাম। আচমকা এমব অর্ডার বাড়ানোয় সামলানো অসম্ভব হয়ে পড়েনি। আমরা ভাবিনি যে এক বছরে ১০০ কোটি ডোজ তৈরি করতে হবে। সেই অনুযায়ী অর্ডারও আমাদের প্রথমে দেওয়া হয়নি।’

সেরাম কর্তার এই মন্তব্যের পরই শুরু হয় বিতর্ক। তড়িঘড়ি পরিস্থিতি সামাল দিতে আসরে নামে আদর পুনেওয়ালা। ড্যামেজ কন্ট্রোলে টুইট করে তিনি বলেন, ‘আমার মন্তব্যের ভুল ব্যাখা করা হয়েছে। ভ্যাকসিন যেভাবে তৈরি করা হয়, তাতে আচমকা রাতারাতি প্রোডাকশন বাড়ানো সম্ভব নয়। আমাদের এটা মনে রাখতে হবে ভারতের জনসংখ্যা বিপুল এবং সকলের জন্য করোনা টিকা উৎপাদন এতটা সহজ কাজ নয়। নির্দিষ্টভাবে বলতে গেলে এখনও পর্যন্ত আমরা ২৬ কোটি টিকার অর্ডার পেয়েছি। তার মধ্যে ১৫ কোটি ইতিমধ্যেই আমরা সরবরাহ করেছি।’

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় এবং অ্যাস্ট্রাজেনেকার যৌথ উদ্যোগে ভারতে কোভিশিল্ড তৈরি করছে আদর পুনেওয়ালার সংস্থা সেরাম ইনস্টিউট অফ ইন্ডিয়া। রাজ্যগুলোর জন্য কোভিশিল্ডের দাম কমানো হয়েছে। ডোজ পিছু কোভিশিল্ড টিকার দাম ৪০০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা করা হয়েছে। ফলে এবার থেকে ডোজ পিছু কোভিশিল্ড কিনতে গেলে ৪০০ টাকার বদলে ৩০০ টাকা খরত করতে হবে রাজ্যগুলোকে। উল্লেখ্য, টিকার দাম কমানোর বার্তা দিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। শেষমেশ সরকারের ডাকে সাড়া দিয়ে দাম কমানোর সিদ্ধান্ত নিল সেরাম।টুইটারে সেরাম ইনস্টিটিউটের CEO আদর পুনাওয়ালা লিখেছিলেনন, ‘রাজ্যগুলোর জন্য ডোজ পিছু টিকার দাম ৪০০ টাকা থেকে কমিয়ে ৩০০ টাকা করা হল। এতে রাজ্যগুলোর কোটি কোটি টাকা বেঁচে যাবে। এরফলে টিকাকরণের প্রক্রিয়া আরও ত্বরান্বিত হবে। অনেক জীবন বাঁচবে।’

এদিকে, দৈনিক সংক্রমণের ভয়াবহ রেকর্ড। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৬৮ হাজার ১৪৭ জন। করোনায় একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজার ৪১৭ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাকে হারিয়ে জয়ী হয়েছেন ৩ লাখ ৭৩২ জন। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুসারে ভারতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৯৯ লাখ ২৫ হাজার ৬০৪ জনের। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৬,২৯,৩০০৩ জন। মোট মৃতের সংখ্যা ২ লাখ ১৮ হাজার ৯৫৯। এই মুহূর্তে দেশে অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ৩৪ লাখ ১৩ হাজার ৬৪২।

টাটকা ভিডিয়ো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন এই সময় ডিজিটালের YouTube পেজে। সাবস্ক্রাইব করতে এখানে ক্লিক করুন।






Source link